April 14, 2024
Breaking News

ত্রিপুরায় দুটো বিবাহভবনে পুলিশের হানা অনুষ্ঠান ভন্ডুল , গ্রেপ্তার অনেকই

📝ইন্দ্রনীল দত্ত,ত্রিপুরা, Todays Story: একদিকে নাইট কারফিউ চলছে। সংগে ১৪৪ ধারা। আর অন্যদিকে ধুমধাম করে চলছে বিয়ের অনুষ্ঠান। অতিথির সংখ্যাও বেশ বড়সড় ছিল। কিন্তু হঠাতই হানা বিশাল পুলিশ বাহিনীর। তারপর?

না এটা কোনও ফিল্মের দৃশ্য নয়। এই বাস্তব ছবি ধরা পড়লে ত্রিপুরার আগরতলায়। খবর নিয়ে জানা গেছে, কারফিউ চলাকালীন করোনা প্রটোকল ভঙ্গ করায় সোমবার রাতে আগরতলার শহরের উত্তর গেইট এলাকায় দুটি বিবাহভবনে হানা দিয়ে বিয়ে ভন্ডুল করার পাশাপাশি ত্রিপুরা পুলিশ বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছেন। আর এর নেত্বত্বে ছিলেন পশ্চিম জেলার জেলাশাসক শৈলেশ যাদব। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, একে তো বিয়ের জন্য প্রশাসন থেকে নেওয়া হয়নি কোনও অনুমতি, এমনকি বিয়ের অনুষ্ঠানেও কোভিড প্রটোকল মানা হয়নি। ১৪৪ ধারাও ভঙ্গ। আশপাশ এলাকা থেকে এমন অভিযোগ পেয়েই হঠাৎ বিশাল পুলিশ বাহিনী ঢুকে পড়ে ওই দুটি বিবাহভবনে। পুলিশ দেখেই চক্ষু চড়কগাছ বিয়ে বাড়ির সদস্য সহ আমন্ত্রিতদের। পুলিশ এসেই বিয়ে ভঙ্গ করার পাশাপাশি অতিথিদের সেখান থেকে সরিয়ে দেন। শুধু এখানেই শেষ নয়, পশ্চিম জেলার জেলাশাসক শৈলেশ যাদবের নিদেশে আমন্ত্রিত এবং বিয়ে বাড়ির পাত্রপাত্রীর বেশ কজন সদস্যকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যান। গ্রেপ্তার করা হয় দুটি বিবাহ ভবনে যথাক্রমে “গোলাপ বাগান” এবং “মাণিক্য কোট”র বেশ কজন সদস্যকে। পাশাপাশি এই দুটি বিবাহ ভবনকে এক বছরের জন্য পুরোপুরি তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। জানা গেছে যে পশ্চিম জেলার জেলাশাসক শৈলেশ যাদব ওই দুটি বিবাহ ভবনে আসা আমন্ত্রিতদের সঙ্গে অভদ্র ব্যবহার করেছেন। কারও কারও গায়ে নাকি হাতও দিয়েছেন। এমনকি পাত্রপাত্রীর সদস্যদের সঙ্গেও বাজে ব্যবহার করেছেন বলে ওই বিয়ে বাড়ির সদস্যরা অভিযোগ করেছেন। তবে পশ্চিম জেলার জেলাশাসক শৈলেশ যাদবের এই কর্মকান্ডে তিনি এখন রাজ্যজুড়ে প্রশংসা কুড়াচ্ছেন। অনেকেই বলছেন যে গোটা দেশের সঙ্গে ত্রিপুরাতেও এখন এক সংকটময় পরিস্থিতি বিরাজ করছে। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে। এই আবহে এমন ধুমধাম বিয়ের কোনও মানেই হয়না। অনেকে আবার দুটি বিবাহভবনের মালিকের দিকে আংগুল তুলে প্রশ্ন তুলেছেন যে করোনা আবহে তারা এমন বিয়ের আয়োজন কেনই বা করতে গেলো ? আর কেনই বা আগাম অনুমতি নেওয়া হলো না?

error: Content is protected !!